Categories
যাপিত জীবন

ছানাপোনাদের পার্টি



কোন এক দিন কথাপ্রসঙ্গে আলাপ করেছিলাম ওয়ান ডিস পার্টি নিয়ে। ভেবেছিলাম রোজা শুরু হওয়ার আগে বাচ্চাদের নিয়ে কিছু একটা আয়োজন করব। পরিস্থিতি অনুকূল না হওয়াতে সেটা মাথা থেকে বাদ দিয়েছিলাম। কিন্তু পুত্রকন্যার মাথায় কোন ভাবে বিষয়টা ঢুকে গেছে যে তারা ওয়ান ডিশ পার্টি করবে।

গতকাল খেলাধুলা শেষ করে এসে তারা জানালো যে পরের দিন পার্টি করবে, সবাই আসবে। বিষয়টাকে খুব একটা পাত্তা দেইনি। আজ সকাল থেকে তারা ভাই-বোন ঘোষণা করছে ওয়ান ডিস পার্টি হবে, কে কে আসবে , কোন জামা পরবে ইত্যাদি । দুপুরে গোসলের পর ভালো করে কনফার্মেশন নিতে বললাম বন্ধু-বান্ধবদের থেকে। তারা নিজ দায়িত্বে সবার বাসায় বাসায় গিয়ে ওয়ান ডিস পার্টির কথা বলে আসলো।

কোন পূর্ব পরিকল্পনা ছাড়া বাচ্চাকাচ্চাদের এসমস্ত আবদার মেটানো একটু কষ্টকর। যেহেতু পুত্র কন্যা নিজেরা পরিকল্পনা করে কিছু একটা বাস্তবায়ন করতে চেয়েছে তাই কষ্ট হলেও আর বাধা দেইনি। সকালের নাস্তা , দুপুরের খাবার, এর মাঝে ক্লাস- সবকিছু শেষ করে দুপুরের পর আবার তাদের নাস্তার আয়োজন করলাম। দু’তিন পদ খাবার রেডি করে ছানা পোনা সমেত ছাদে গেলাম। ততক্ষনে বেশ কিছু বাচ্চাকাচ্চা এক জায়গায় জড়ো হয়েছে।

আসন্ন রমাদান নিয়ে তাদের সাথে টুকটাক আলাপ আলোচনা করলাম। মা-বাবাকে কিভাবে বাসার কাজে সাহায্য করা যায় , রোজার আদব , সাদাকা ইত্যাদি কিছু বেসিক বিষয় নিয়ে কথাবার্তা বললাম। এরপর ৪০ হাদিস এর গল্প বইটি থেকে একটা গল্প পড়ে শোনালাম। বাচ্চারা বেশ মজা পেয়েছে। ওরা আসলে অনেক কিছু জানতে চায়, বুঝতে চায়। জানার জন্য ওদের উপযুক্ত পরিবেশ , পরিস্থিতি ও পরিচর্যা দরকার।

এরপর তারা খাবার-দাবার খেলো একসাথে সবাই মিলে। তারপর কিছুক্ষণ খেলাধুলা চলল। নায়রাহ ড্রইং খাতা, রং নিয়ে গিয়েছিল। আঁকা আঁকি চলল আরো কিছু ক্ষন। সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলে, যে যার বাসায় ফিরে গেলো।

অপরিকল্পিত ভাবে ছোট আয়োজন। বাচ্চার নিজেরা পরিকল্পনা করেছে একসাথে বসে খাবে, খেলবে। ঝামেলা হলেও বাধা দেইনি যে তারা এখন থেকেই সবাইকে নিয়ে ভাবছে, কিছু আয়োজন করার চেষ্টা করছে। ভুলভাল কি করেছে, বুঝিয়ে দিলাম।

তাদেরকে জিজ্ঞাসা করলাম আমরা যখন বুড়া হবো তখন আমাদের বুড়ো বন্ধুদের নিয়ে এরকম পার্টি করতে চাইলে তারা আমাদের কিছু বানিয়ে দিবে কিনা। তারা একমত হয়েছে, বড় হলে আমাদের বুড়ো দের পার্টি আয়োজন করবে।
বারাকাল্লাহু ফিকী।

(ক্লান্ত হয়ে কয়েক মিনিটের জন্য চোখটা একটু বন্ধ করেছিলাম। এর মাঝে ছোট পুত্র চেয়ার বেয়ে টেবিলে উঠেছে। আবার টেবিল থেকে নামতে গিয়ে ধপাস করে পড়ে গিয়েছে।)