Categories
অভিজ্ঞতা

একটি বিবাহ সমাচার
(ছোট গল্প)


ইরা এবং নিও আজ পরিণয় সুত্রে আবদ্ধ হতে যাচ্ছে। খুবই অনাড়ম্বর ভাবে কাছের কিছু আত্মীয় এবং বন্ধু বান্ধবকে নিয়ে একটি রেস্টুরেন্ট এ আকদ হবে তাদের।

বিয়ে নিয়ে ইরা খুব বেশি চিন্তিত নয়। সে তো সিনেমাতে দেখেছে কিভাবে বিয়ে হয়!!! মামা খালাদের ও বিয়ে দেখেছে। তাই তার কাছে বিষয়টা it’s not a big deal… type

নিও অবশ্য আগামীর কথা ভেবে চিন্তিত ও পুলকিত দুটাই বোধ করছে। ☺️☺️

যাই হোক কিছু আনুষ্ঠানিকতা শেষে কবুল পড়ানোর সময় এলো। ইরা সারা জীবন দেখে এসেছে, অমুকের ছেলের সাথে তমুকের মেয়ের এত লক্ষ টাকা দেনমোহর এ বিবাহ ধায্য করা হয়েছে। কাজি কনেকে বলছে, বল মা, কবুল!! কনে অনেক সময় নিয়ে খুব আস্তে করে বলে, কবুল।

ইরার ক্ষেত্রে ব্যাপারটা কিছুটা অন্য রকম ছিল। সে তার মামা এবং দুজন বান্ধবি নাস ও জাকু সহ বসে আছে। কাজি সাহেব ইরাকে বল্ল, অমুকের ছেলে তমুকের মেয়েকে এত টাকা দেনমহর দিয়ে বিয়ে করছে। এজন্য আপনার অনুমতি চাইছি।😳

ইরা কি জবাব দিবে, বুঝতে পারছে না। 🤔 সে তার মামার কাছে জানতে চাইল, মামা কি বলব?
মামা বললেন, ‘বল, অনুমতি দিলাম।

সে কাজি কে তাই বলল, অনুমতি দিলাম।👀 অতঃপর কাজি সাহেব বরের কাছে চলে গেল।
ইরা অপেক্ষা করে বসে আছে আর ভাবছে, কাজি তো আমার কাছ থেকে বিয়ের অনুমতি নিয়ে বরের কাছে গেল, কবুল পড়ানোর জন্য এখনো কেনো আসছে না!! 🙄

ওমা একটু পর ইরা দেখে, সবাই মোনাজাত ধরেছে!!! সে তো কিছুই বুঝতে না পেরে আশেপাশে দেখছে, ঘটনা কি তা জিজ্ঞাসা করার জন্য।🤭

কিন্তু সবাই তখন মোনাজাত করছে। শেষে তার বান্ধবী গন তাকে নিয়ে হাসাহাসি শুরু করল। ইরা কাদেনি, দেরি করে কবুল বলেনি….. ইরা তো বিয়ের জন্য পাগল!!!😳😳

বেশ খানিকক্ষণ পর ইরা বুঝতে পারল, সিনেমার মতো, বল কবুল…. এভাবে তার বিয়েটা হয়নি….কিছু বোঝার আগেই সে বিবাহিত হয়ে গেল। 🥳🥳🥳

তারপর ইরা আর নিও সুখে ঘরকন্না করতে লাগল। 🥰🥰🥰